ধানে চিটা হওয়ার কারন ও সমাধান

সমীরন বিশ্বাস

স্বাভাবিকভাবে ধানে শতকরা ১৫-২০% চিটা হয়ে থাকে। চিটার পরিমান এর চেয়ে বেশী হলে ভাবতে হবে থোর থেকে ফুল ফোটা এবং ধান পাকার আগ পর্যন্ত ফসল কোন না কোন বিপদের শিকার হয়েছে, যেমন- অতি ঠান্ডা, বা গরম, খরাব া অতি বৃষ্টি, ঝড় ঝঞ্ঝা, পোকা ও রোগ বালাই।

ঠান্ডা:
রাতে তাপমাত্রা ১২-১৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং দিনের তাপমাত্রা ২৮-২৯ ডিগ্রী সেলসিয়াস কাইচ থোর থেকে থোর অবস্থা পর্যন্ত , ধান চিটা হওয়ার জন্য সংকট তাপমাত্রা। ৫-৬ দিন শৈত্য প্রবাহ চলতে থাকলে অতিরিক্ত চিটা হওয়ার আশঙ্কা থাকে। রাতের তাপমাত্রা কমে গেলেও, যদি দিনের তাপমাত্রা ২৯ ডিগ্রী সেলসিয়াসের বেশী থাকে তা হলেও চিটা হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

গরম:
ধানের অসহনশীল তাপমাত্রা হলো ৩৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস বা তার বেশী। ফুল ফোটার সময় ১-২ ঘন্টা এ তাপমাত্রা বিরাজ করলে অতিরিক্ত চিটা হয়ে যায়।

খরা:
খরার কারনে শাখা বৃদ্ধি কম হয়, বিকৃত ও বন্ধ্যা ধানের জম্ম দেয়ায় ধান চিটা হয়ে যায়
ঝড়ো বাতাস:

অতি ঝড়ো বাতাসে গাছের প্রস্বেদন প্রক্রিয়া বাধা পায়, এতে ফসলের অঙ্গ গঠনে বাধা পায়। ঝড়ো বাতাসে পরাগায়ন,গর্ভ ধারন,ও চালের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। ফলে ধানে খয়রি ও কালো দাগ পড়ে এবং ধান চিটা হয়ে যেতে পারে।

শৈত্য প্রবাহ:
১. ধানের চারা মারা যায়
২. কুশির সংখ্যা কমে যায়
৩. ধান গাছ হলুদ হয়ে যায়
৪. থোর থেকে শিষ বের হতে পারে না
৫. শিষের আগার ধান চিটা হয়ে যায়
৬. গরম ও ঝড়ো বাতাসে ধান চিটা হয়ে যেতে পারে

করনীয়:
১. জমিতে সর্বদা পানি রাখতে হবে
২. বিঘাপ্রতি ৫ কেজি এমওপি সার উপরি প্রয়োগ করা যেতে পারে
৩. এমওপি সার ১০ লিটার পানিতে ১০০ গ্রাম মিশিয়ে ৫ শতকে স্প্রে করুন।
৪. উপজেলা কৃষি অফিসে যোগাযোগ করুন।

[লেখক: সম্বয়কারী, সিসিডিবি, ঢাকা।]