ভিটামিন ‘এ’ দিবস

ভিটামিন ‘এ’ দিবস

হামিদা ইয়াসমিন মুক্তি
৬ মাস হতে ৫ বছরের যত শিশু আছে
রেজিস্ট্রেশন করতে হবে যেয়ে তাদের কাছে।
ভিটামিন ‘এ’ খাবে শিশু বছরে দুই বার,
সকল রকম সুযোগ দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার।
কোন শিশুই ভুগবে না আর দারুন অপুষ্টিতে,
স্বাস্থ্য সেবা পাবে সবাই স্বীয় দোর গোড়াতে।
ছোট মাছ আর ফলমূলে ভিটামিন ‘এ’ আছে
শাকবজিতেও পুষ্টি আছে এ কথা নয় মিছে।
জানবে মাতা, খালা, চাচী, দাদী, নানী সবে
ভিটামিন ‘এ’র অভাব হলে কী খাওয়াতে হবে?
চাচা, দাদা, পিতা, ভ্রাতা আছেন যতজন,
গ্রামে-গঞ্জের সকলকে যে করবো সচেতন।
প্রতিবন্ধী যত শিশু রয়েছে সমাজে
তাদেরকেও এই ‘এনআইডি’তে আনতে হবে খুঁজে।
বাদ যেন না পড়ে শিশু রাখতে হবে মনে,
প্রচার করতে হবে খুব, যেন বার্তা সবাই শোনে।
জানবো মোরা, জানবে লোকে, জানবে সুধীজন,
সব শিশুরই ভিটামিন ‘এ’ র আছে প্রয়োজন।
৫ই আগস্ট টিকা কেন্দ্রে শিশু ভিটামিন ‘এ’ খাবে,
সবাই মিলে দিবসটিকে সফল করতে হবে।
[ কবি বর্তমানে শিবালয় উপজেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর হিসেবে কর্তব্যরত]