শিবালয়ে মন্দির ভাংচুর-লুটপাট

মানিকগঞ্জ টাইমস রিপোর্ট ॥
শিবালয় উপজেলার শীলপাড়া সার্বজনীন দূর্গা মন্দির ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা হয়েছে। সোমবার ভোর রাতে অবৈধভাবে মন্দিরের জায়গা দখলের উদ্দেশ্যে প্রতিমা ও অন্যান্য মুর্তিসহ ঘর-দোর লুটপাট করেছে বলে বাদী উল্লেখ করেন। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে আটক ও একটি পিক-আপ জব্দ করেছে পুলিশ। পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
মন্দির কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা প্রমথ চন্দ্র শীল সূর্য জানান, শীলপাড়া মন্দিরে আমারা দীর্ঘ ৩০ বছর যাবৎ পূজা অর্চনা করে আসছি। মানিকগঞ্জ জেলা আ’লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম খাঁ ও ভাগ্নে স্থানীয় মডেল ইউপি চেয়ারম্যান আলাল উদ্দিন তার সন্ত্রাসী বাহিনীর লোকজন নিয়ে সোমবার ভোর রাতে উক্ত মন্দিরের জায়গা অবৈধভাবে দখল ও কালী প্রতিমাসহ ঘরদোর ভেঙ্গে গাড়ীযোগে নেয়ার চেষ্টা চালায়। ঘটনা টের পেয়ে মোবাইল ফোনে পুলিশে খবর দেয়ায় তারা আমাকে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। ঘটনাস্থলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা দ্রুত পালিয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মন্দিরের মালামাল ভর্তি পিক-আপ ভ্যানসহ অভিযুক্ত একজনকে আটক করে।

পুলিশ জানায়, উক্ত ঘটনায় মন্দির কমিটির সভাপতি বাদী হয়ে আট জনের নাম উল্ল্যেখসহ অজ্ঞাতনামা ৬০/৭০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে। ঘটনার পরপর মন্দিরের মালামাল বোঝাই একটি পিক-আপ জব্দ করা হয়। ঘটনার সাথে জড়িত অভিযুক্ত মোমিনসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত আব্দুর রহিম খানের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, একটি কুচক্র মহল আমার বিরুদ্ধে নানা প্রবাকান্ড ও নানা কুৎসা রটাচ্ছে। এহেনও ঘটনার সাথে আমি বা আমারে কোন লোকজন জড়িত নয়। তিনি উল্টো সূর্য্য শীলকে দায়ি করে বলেন, মন্দিরের নামে তারা আমার ক্রয়কৃত জায়গা দখলের পায়তারা করছে। বিষয়টি স্থানীয় এমপিসহ প্রশাসন অবগত রয়েছে।

শিবালয় উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ, হিন্দু মহাজোটসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন নেতৃবৃন্দ এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জড়িতদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেছেন।